শীতে ত্বকের যত্ন। শীতকালে ত্বক ও চুলের যত্নে প্রয়োজনীয় টিপস।

আমাদের চারপাশের আবহাওয়া বলে দিচ্ছে যে শীতের আগমন হয়ে গেছে। সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি ও শুষ্ক আবহাওয়ার জন্য আমাদের ত্বক শুষ্ক হতে থাকে। এজন্য শীতে ত্বকের যত্ন নেওয়া খুব প্রয়োজন হয়ে পড়ে। এছাড়াও শীতকালে চুলের সমস্যা ও দেখা দেয়। বছরের অন্য সময়ের তুলনায় শীতকালে ত্বক ও চুলের যত্ন নেওয়া আবশ্যক। শীতকালে ত্বক ও চুলের যত্নে প্রয়োজনীয় টিপস।
শীতে ত্বকের যত্ন। শীতকালে ত্বক ও চুলের যত্নে প্রয়োজনীয় টিপস।janbo amra।জানবো আমরা
শীতে ত্বকের যত্ন। শীতকালে ত্বক ও চুলের যত্নে প্রয়োজনীয় টিপস।

সূচিপত্রঃ শীতে ত্বকের যত্ন। শীতকালে ত্বক ও চুলের যত্নে প্রয়োজনীয় টিপস

ভূমিকাঃ 
এই শীতে ত্বকের যত্নের জন্য আমরা বিভিন্ন ময়শ্চারাইজার বা ঘরোয়া পদ্ধতিতে তৈরি বিভিন্ন উপাদান ব্যবহার করতে পারি। শীতকালে ত্বক ও চুলের যত্নের জন্য আমাদের কিছু পুষ্টিকর খাবারও খেতে হবে।শীতকালে ত্বক ও চুলের যত্নে প্রয়োজনীয় কিছু টিপস আপনাদের সাথে শেয়ার করব।

কোমল ত্বক পেতে পর্যাপ্ত জল পান

শীতকালে জল কম পান করলে শরীর শুষ্ক হতে থাকে। শরীরকে ভেতর থেকে কোমল রাখতে প্রচুর জল পান করতে হবে। প্রতিদিন কমপক্ষে ৮ থেকে ১০ গ্লাস জল পান করতে হবে। জলের পাশাপাশি ফলের রস বা ডাবের জল পান করুন।

ত্বকের যত্নে কলার ফেসপ্যাক

কলার ফেসপ্যাক ব্যবহারে ত্বক কোমল ও উজ্জ্বল হয়।কলার ফেস প্যাক তৈরি করার জন্য একটি পাকা কলা এক চামচ নারিকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই ফেসপ্যাকটি মুখে মাখুন এবং শুকিয়ে যেতে দিন। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। প্রতি সপ্তাহে দুইবার এই ফেসপ্যাক টি ব্যবহার করুন তাহলেই ত্বকের শুষ্কতা কমে যাবে।

ত্বকের কোমলতা ও উজ্জ্বলতায় অ্যালোভেরা

ত্বক কোমল ও উজ্জ্বল রাখতে অ্যালোভেরার গুরুত্ব অপরিসীম। অ্যালোভেরা কয়েকটি পদ্ধতিতে ব্যবহার করা যায়।
  • অ্যালোভেরা জেল,এক চিমটি হলুদের গুঁড়া ও এক চা চামচ মধু ভালো করে মিশিয়ে পেস্ট করে নিন।
  • টক দই ও অ্যালোভেরা জেল ভালো করে মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। 
  • অ্যালোভেরা জেল ও শসার রস মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন।

এই তিনটি মিশ্রণের মধ্যে যেকোনো একটি সপ্তাহে ১-২ বার ব্যবহার করুন। এই মিশ্রণগুলো মুখে,গলায়,হাত পায়ে বা শরীরের যে কোন জায়গায় ১৫-২০ মিনিটের জন্য লাগিয়ে রাখুন এরপর হালকা কুসুম গরম পানিতে ধুয়ে ফেলুন। শীতকালে এই মিশ্রণগুলো ব্যবহারের ফলে আপনার ত্বক হবে লোমল ও উজ্জ্বল। এছাড়াও আপনার মুখে যদি কোন রকম দাগ থাকে এই মিশ্রণগুলো ব্যবহারের ফলে তা দূর হবে।

ময়েশ্চারাইজার

স্নান করার আধা ঘন্টা আগে অলিভ অয়েল বা নারিকেল তেল পুরো শরীরে মাখিয়ে নিন। তারপর হালকা কুসুম গরম জলে স্নান করার পরে অবশ্যই ভালো মানের ভিটামিন "ই" যুক্ত ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। রাতে ঘুমানোর আগে অবশ্যই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করে ঘুমান। এতে ত্বক কোমল ও মসৃণ থাকবে।

শীতে চুলের যত্নে ঘরোয়া টোটকা

শীতে চুল অনেক রুক্ষ হয়ে পড়ে। এর ফলে চুল পড়া শুরু করে। কয়েকটি ঘরোয়া উপায়ে আমরা চুলের যত্ন নিতে পারি।
  •  ক্যাস্টর অয়েল,এলোভেরা জেল ও অলিভ অয়েল একসাথে ভালো করে মিশিয়ে হালকা গরম করে নিতে হবে। মিশ্রণটি ঠান্ডা হলে ভিটামিন ই ক্যাপসুল ভেঙে মেশাতে হবে। এরপর চুলে লাগাবেন।
  • চুলে লাগানোর যেকোনো  তেল যেমন বাদাম তেল,নারকেল তেল,অলিভ অয়েল হালকা গরম করে নিয়ে চুলের গোড়ায় মাসাজ করে লাগান। আধা ঘন্টা রেখে ধুয়ে ফেলুন।
  • টক দই ও ডিম দিয়ে একটি হেয়ার প্যাক বানিয়ে ফেলুন। এটি চুলে এবং স্কাল্পে ভালো করে লাগিয়ে নিন।এক ঘন্টা রেখে ধুয়ে ফেলুন। 
  • এক টেবিল চামচ মধু,একটি পাকা কলা,মাঝারি সাইজের দুইটি পেঁয়াজ একসঙ্গে ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। এই মিশ্রণটি স্কাল্পে ও চুলে ভালো করে লাগিয়ে নিন। চুলে ২০ মিনিট লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন। এটি ব্যবহারে চুলের গোড়া মজবুত হবে এবং চুল মোলায়েম হবে।

চুলের খুশকি দূর করার টিপস

চুলের সুস্থতা বজায় রাখার জন্য চুলের খুশকি অবশ্যই দূর করতে হবে। কয়েকটি পদ্ধতিতে আমরা চুলের খুশকি দূর করতে পারি।
  • একটি ছোট পাত্রে কয়েকটি জবা ফুল ও নারকেল তেল নিয়ে অল্প আঁচে গরম করতে হবে। যেন জবা ফুলের নির্যাস ভালো করে তেলের সঙ্গে মিশে যায়। এরপর তেল টি ঠান্ডা করে একটি কাচের বোতলে সংরক্ষণ করতে হবে। স্নান করার এক ঘন্টা আগে এই তেলটি মাথার স্কাল্পে দিয়ে রাখতে হবে।কয়েক মাস ব্যবহারে এর উপকার বুঝতে পারবেন।
  • স্নান করার আধা ঘন্টা আগে লেবুর রস ও নারকেল তেল একসঙ্গে মিশিয়ে চুলে লাগান। এই পদ্ধতিতেও আপনার চুলের খুশকির সমস্যা  দূর হবে।
  • ৮-১০ ঘন্টা মেথি পানিতে ভিজিয়ে রেখে সেটি বেটে ফেলুন। এই পেস্টটি চুলে আধা ঘন্টা লাগিয়ে রেখে তারপর শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন।

চুলের উজ্জ্বলতায় মেথি ও তেল 

মেথি গুঁড়ো করে অথবা আস্ত মেথি দানা নারকেল তেলে মিশিয়ে নিন। এই তেল আপনার চুলে নিয়মিত ব্যবহার করুন। এটি আপনার চুলকে উজ্জ্বল করবে এবং সিল্কি করবে।

শেষকথা 

শীতকালে সকলের ত্বক ও চুল রুক্ষ হতে থাকে।তাই আমাদের চুল ও ত্বকের জন্য এক্সট্রা কেয়ার নিতে হয়। উপরিউক্ত পদ্ধতিতে যদি ত্বক ও চুলের যত্ন নেওয়া হয় তাহলে এই শীতে আমাদের ত্বক ও চুল সুন্দর ও উজ্জ্বল থাকবে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

জানবো আমরা ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url