ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস কি? ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ কি?

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস কি এবং ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ কি এই বিষয়গুলো নিয়েই আজকের আর্টিকেলে আলোচনা করতে যাচ্ছি। এছাড়াও ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট খরচ, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট কোর্স ইত্যাদি বিষয়গুলোও জানতে পারবেন। আপনি যদি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস করতে চান তাহলে ভালোভাবে পড়ুন এটি।
ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস কি। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ কি। জানবো আমরা। janbo amra
ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস কি। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ কি।

সূচিপত্রঃ ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস কি? ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ কি?

ভূমিকাঃ

আজকাল অনেকে ব্যস্ততার কারণে কিংবা কাজের চাপ থেকে মুক্ত থাকতে বড় কোনো পারিবারিক বা অফিসিয়াল উৎসব বা অনুষ্ঠান আয়োজনের দায়িত্ব পেশাদার কোন প্রতিষ্ঠানকে দেন। বিশেষ করে, অনেক ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান তো কাজ করতেই চায় না।

এ সুযোগ কাজে লাগাতে অর্থাৎ ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বা অনুষ্ঠান ব্যবস্থাপনার কাজে এগিয়ে আসছেন অনেকেই। বছরজুড়ে প্রাতিষ্ঠানিক ও ব্যক্তিগত অনুষ্ঠান লেগেই থাকে। সেসব আয়োজন সুন্দর ও রুচিশীল করতে অনেকেই শরণাপন্ন হন ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের।

গায়ে হলুদ,বৌভাত, বিবাহবার্ষিকী, জন্মদিন, কনসার্ট, ডিজে পার্টি, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, কর্পোরেট অনুষ্ঠান, মেলা, প্রদর্শনী, ফ্যাশন শো, অফিশিয়াল মিটিংসহ ছোট-বড় সব ধরনের অনুষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের কাজটি করেন তারা। বর্তমানে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ শৈল্পিকতার ছোঁয়ায় অনেক সুন্দর ও নান্দনিক একটা শিল্প হয়ে উঠেছে।

পেশাটা যেমন চ্যালেঞ্জিং তেমনি ক্যারিয়ার লাইফ উপভোগ করারও যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে এখানে। সুযোগ রয়েছে নিজেকে প্রমাণেরও। কাজের ক্ষেত্র হিসেবেও এখানে রয়েছে ব্যাপক সুযোগ।

বাংলাদেশে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ ইতিহাস ও বিকাশ সম্পর্কে গ্রে অ্যাডভারটাইজিংয়ের মার্কেটিং সার্ভিস পরিচালক(অপারেশন) সাইফুল আজিম বলেন, বাংলাদেশে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ বা বিজনেস এর প্রচলন শুরু হয় ১৯৯৯ সালের শেষের দিকে। মূলত ২০০২ সালের পর থেকেই এটি ধীরে ধীরে বিকাশ লাভ করতে শুরু করে।

বর্তমানে সারাদেশে কাজ করছে প্রায় ২০০ থেকে ৩০০ ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান। স্বাবলম্বী হতে বা ভালো আয় করতে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টকে আপনিও নিতে পারেন পেশা হিসেবে। একটু সাহসী, বুদ্ধিমান ও আত্মবিশ্বাসী হলে প্রতিষ্ঠা করে ফেলতে পারেন ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্ম বা ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস।

শুরুর আগে সরাসরি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস এ না নেমে কিছুদিন জব করে নিতে পারেন। তবেই প্রকৃত অর্থে নিজেকে চিনতে পারবেন। আর নিজেকে চিনতে পারার মাধ্যমেই নিজের অবস্থান আপনার কাছে পরিষ্কার হয়ে যাবে। অফিস না নিয়ে অল্প পুঁজিতেও আপনি শুরু করতে পারেন।

এক্ষেত্রে আপনাকে লাখখানেক টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। প্রথমেই বড় কাজ না ধরে ছোট ছোট কাজ দিয়ে শুরু করতে হবে। এদের চাপ থাকবে কম এবং বেশি বিনিয়োগও করতে হবে না। তবে অফিস নিয়ে কাজ শুরু করতে চাইলে স্থানভেদে বিনিয়োগ করতে হবে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা।

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস বা ফার্ম শুরু করতে আপনাকে দুটি পদ্ধতির আশ্রয় নিতে হবে। ব্যবসা শুরু করবেন, তবে আগ্রহের পাশাপাশি পরিশ্রমী হতে হবে আপনাকে। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস বা ফার্ম যত বেশি স্মার্ট ও দক্ষ হবে তত উন্নতমানের এবং লাভজনক কাজের কন্ট্রাক্ট পাওয়া যাবে এবং বড় বড় মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির কাজ নেয়ার সুযোগ হবে।

প্রতিটি ব্যবসার মতো এখানেও ঝুঁকি আছে। দক্ষতা ও মানুষকে আকৃষ্ট করার ক্ষমতা। এ কাজের সাফল্যের বড় মাধ্যম হলো কাজের মান। কোন গ্রাহকের সঙ্গে কাজের মানের সমস্যা না করলে বাড়তে থাকবে কাজের পরিমাণ।

দক্ষতার সঙ্গে ফার্ম প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনা করতে পারলে এ ব্যবসায় ক্ষতির কোন আশঙ্কা নেই। দক্ষতা আন্তরিকতা ও চেষ্টার মাধ্যমেই আপনার ফার্মকে সাফল্যের পথে নিয়ে যেতে পারবেন।

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ কি বা কাকে বলে? 

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বলতে কোন ঘটনার ব্যবস্থাপনাকেই বোঝায়। যেমন ধরুন আপনার বাড়িতে আপনার সন্তানের মুখে ভাত বা অন্নপ্রাশনের অনুষ্ঠান করবেন। তার জন্য যে আয়োজন করতে হবে সে সম্পর্কে আপনার কোন রকম ধারণা নেই বা অনুষ্ঠানটি কিভাবে পরিচালনা করবেন তা বুঝতে পারছেন না।

এক্ষেত্রে আপনার এই অনুষ্ঠানের সকল দায়িত্ব একটি প্রতিষ্ঠানকে দিলেন। ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মীরাই দেখবে আপনার অতিথিরা কোথায় খাবে, কোথায় বসবে, পুরো বাড়িটা কোথায় কিভাবে সাজালে সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে। এইসব কাজগুলোকেই বলা হয় ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট।

কারা ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস করতে পারবে? 

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ কি জানলেন এইবার জানা যাক কারা ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস করতে পারবে। সবাই সব কাজে পারদর্শী হয় না অর্থাৎ একেকজনের মাঝে একেকরকম প্রতিভা রয়েছে।

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস করতে গেলে আপনার মধ্যে কিছু গুণাবলী থাকতে হবে। তো চলুন দেখে নেওয়া যাক কোন গুণাবলী থাকলে আপনি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর ব্যবসা করতে পারবেন।

পরিকল্পনা করার সক্ষমতা

উপযুক্ত পরিকল্পনা ছাড়া কোন কাজেই সফলতা অর্জন করা যায় না। আপনি যে কোন কাজ শুরুর আগে সঠিক পরিকল্পনা করুন তাহলে সফলতার অর্ধেক পথ এগিয়ে যাবেন। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস এর ক্ষেত্রেও ঠিক একইভাবে আপনাকে উপযুক্ত পরিকল্পনা করতে হবে।

যেমন ধরুন একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে বাড়িটা কিভাবে সাজানো হবে? কতগুলো শ্রমিকের প্রয়োজন হবে ইত্যাদি সম্পর্কে পূর্বেই পরিকল্পনা করতে হবে। এইভাবে আপনি যে কোন ইভেন্টের আগে সঠিক পরিকল্পনা করার দক্ষতা থাকতে হবে।

আয়োজন সম্পর্কে দক্ষতা  

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস টিই হলো আয়োজন সম্পর্কিত। অর্থাৎ আপনার যে কোন ইভেন্টে আয়োজনটি সুন্দর ও সুপরিকল্পিত হতে হবে। আপনাকে অবশ্যই যে কোন ইভেন্ট বা অনুষ্ঠানের আয়োজন সম্পর্কে দক্ষ হতে হবে। আপনি এই বিজনেসটিতে যত অ্যাডভান্স লেভেলের দক্ষতা দেখাতে পারবেন তত বেশি লাভ করতে পারবেন।

যেমন ধরুন কোন একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে বিয়ে বাড়ি সাজানো অন্যদের থেকে আপনার যদি অ্যাডভান্স লেভেলের হয় তাহলে অবশ্যই আপনি কাজ বেশি পাবেন এবং লাভের অংকটাও বেশি ধরাতে পারবেন। এছাড়াও একটি বিয়ে বাড়ির অনুষ্ঠান ও একটি জন্মদিনের অনুষ্ঠান বা অন্নপ্রাশনের অনুষ্ঠানের আয়োজন একই হয় না।

এসব সম্পর্কেও আপনাকে যথেষ্ট জ্ঞান রাখতে হবে। অর্থাৎ এই কাজে আপনি যত দক্ষতা দেখাতে পারবেন আপনার ব্যবসাটির তত অগ্রগতি হবে।

পরিশ্রম করার মত ধৈর্য এবং মানসিকতা

যেকোনো কাজেই পরিশ্রম না করলে কখনো সফলতা অর্জন করা যায় না। আবার কিছুদিন পরিশ্রম করে তারপর ধৈর্য হারিয়ে ফেললেও কখনো সফলতার মুখ দেখা যায় না। তাই যেকোনো কাজে সফলতা অর্জনের জন্য আপনাকে পরিশ্রম এবং ধৈর্য দুটোই রাখতে হবে। অনেকে আছেন যারা ভাবেন কিছুদিন পরিশ্রম করব তারপরে সফলতা পেয়ে যাব।

এরকম কখনো ভাবতে যাবেন না। আপনি সঠিক উপায়ে ধৈর্য সহকারে পরিশ্রম করে যান দেখবেন সফলতা আপনাআপনি ধরা দিবে। অর্থাৎ আপনাকে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস এর জন্য অবশ্যই পরিশ্রমী এবং ধৈর্যশীল হতে হবে।

কোথায় আপনি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ করতে পারবেন? 

আপনার ইচ্ছা আছে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস করার বা কাজ করার তো এখন কোথায় কাজ করবেন সেটা জানেন না। তো চলুন ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস বা কাজ কোথায় করবেন সে সম্পর্কে আলোচনা করা যাক। আপনি যদি একজন অভিজ্ঞ ইভেন্ট ম্যানেজার হতে পারেন নিম্নে আলোচিত জায়গা গুলোতে বিজনেস করতে পারবেন।

বিবাহ বার্ষিকীর অনুষ্ঠানেঃ অন্যান্য অনুষ্ঠান গুলোর মতোই বর্তমানে বিবাহ বার্ষিকীর অনুষ্ঠানও খুব ধুমধামে বা জাঁকজমকভাবে পালন করা হয়ে থাকে। আপনার ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস এ বিবাহ বার্ষিকীর অনুষ্ঠান এ্যাড করতে পারেন।

বিয়ের অনুষ্ঠানেঃ ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস এর মধ্যে বিয়ের অনুষ্ঠানটি সবথেকে জাঁকজমকপূর্ণ। প্রচুর লোকজনের আনাগোনা হয়। বিয়ের অনুষ্ঠান পালন করার জন্য ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের অবশ্যই প্রয়োজন পড়ে। তাই আপনি বিয়ের অনুষ্ঠানে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের কাজটি করতে পারেন।

মেলার অনুষ্ঠানঃ আপনারা অবশ্যই দেখেছেন যেকোনো মেলা অনেক সুন্দরভাবে সাজানো গোছানো হয়ে থাকে। এসব কিছুই ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর মাধ্যমেই হয়ে থাকে। আপনিও চাইলে বিভিন্ন মেলার অনুষ্ঠানে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস করে ভালোমতো আয় করে ফেলতে পারবেন। 

জন্মদিনের অনুষ্ঠানঃ বিবাহ বার্ষিকী, বিয়ের অনুষ্ঠান ইত্যাদির মত জন্মদিনের অনুষ্ঠানেও বিশাল আয়োজন করা হয়ে থাকে। এই অনুষ্ঠানগুলোতেও ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর প্রয়োজন পড়ে। আপনি জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ করে মোটামুটি টাকা ইনকাম করতে পারেন। 

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানঃ আমরা অনেক সময় বিভিন্ন উপলক্ষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দেখে থাকি। এসব সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেও অনেক সাজানো গোছানো হয়ে থাকে অর্থাৎ ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর প্রয়োজন পড়ে।আপনি এসব সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেও ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস করতে পারেন।

শুরুটা যেভাবে

যারা এ পেশায় আসতে চান, তারা ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর উপর শর্টকোর্স করতে পারেন। বাংলাদেশের বর্তমানে ছোট-বড় অনেক প্রতিষ্ঠান ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের উপর শর্টকোর্সের আয়োজন করে থাকে।অল্প টাকার বিনিময়ে তাদের থেকে কোর্স করতে পারেন।

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট পরিচালনায় আয়োজিত বড় বড় প্রোগ্রামে উপস্থিত থাকার চেষ্টা করুন। অনুষ্ঠান উপভোগ করার চেয়ে আড়ালে যারা কাজ করে যাচ্ছেন, তাদের কর্ম প্রক্রিয়া ভালো করে লক্ষ্য করুন। দেখুন, জানুন ও শিখুন। অধ্যায়নরত অবস্থায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে খন্ডকালীন চাকরি করতে পারেন। এতে অভিজ্ঞতা বাড়বে।

আয় রোজগার

আপনার অবশ্যই ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস এর আয় রোজগার সম্পর্কে ক্লিয়ার ধারণা নেয়া প্রয়োজন। কেননা আপনি যে বিষয়টি নিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করতে যাচ্ছেন সেখান থেকে কত কি আয় করবেন সেই বিষয়টি অবশ্যই জানতে হবে। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট পেশায় আয় ও বেতনের অংকটা নেহাত কম নয়।

শুরুতেই ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা দিয়ে এ পেশায় আপনি ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন। এরপর অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বেতন বাড়বে। খন্ডকালীন চাকরিতে ৬ থেকে ১২ হাজার টাকা পর্যন্ত সহজেই রোজগার করা যায়।

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস নিজস্ব হলে আয় নির্ভর করে বিনিয়োগ, কাজের সংখ্যা ও পরিমাণের উপর। তবে খুব অল্প পুঁজিতে শুরু করেও আপনি প্রথম দিকেই প্রতিমাসে আয় করতে পারেন ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা।

দায়িত্ব

শাব্দিক অর্থে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বলতে যে কোন ঘটনার যাবতীয় ব্যবস্থাপনাকে বোঝায়, বাস্তবিক ধারণাও তাই। শুষ্ঠু ও সুন্দর ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কোন ঘটনা, অনুষ্ঠান বা কোন আয়োজন পরিচালনা করাই হচ্ছে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট।

আরেকটু বিস্তারিত ভাবে বললে বলা যায, অনুষ্ঠানের সব ব্যবস্থাপনা যেমন - ভেন্যু নির্বাচন, খাবার, পরিবহন, ক্যাটারিং, সাউন্ড সিস্টেম, লাইটিং, পোস্টারিং, ব্যানার, ফুল মিডিয়া কভারেজ, বিজ্ঞাপন, আমন্ত্রণপত্র ছাপানো, আমন্ত্রণ জানানো, ডেকোরেশন,অতিথিদের অভ্যর্থনা জানানো, অনুষ্ঠান উপস্থাপনাসহ সব বিষয় নিখুঁতভাবে আয়োজন করে থাকে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্ম।

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট সেক্টর 

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস করার জন্য আপনার জনবল কে কয়টি ভাগে ভাগ করে দিতে হবে। একেক গ্রুপকে একেক দিক সামলানোর দায়িত্ব দিতে হবে। তো চলুন আলোচনা করা যাক ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের বিভিন্ন সেক্টর বা বিভাগ সম্পর্কে।

প্রোডাকশন বিভাগ

এ বিভাগের কাজ মূলত প্রাথমিক পরিকল্পনা প্রণয়ন করা, ইভেন্টের কাঠামো তৈরি করা এবং গ্রাহকদের সঙ্গে সব রকম যোগাযোগ রেখে অতিথিদের আপ্যায়ন ও চাহিদা পূরণের ব্যবস্থা করা।

ভিজ্যুয়ালাইজেশন বিভাগ

ক্লায়েন্টের পছন্দ বুঝে তা ঠিকভাবে ম্যানেজ করে সে বিষয়গুলো কম্পিউটারে ফুটিয়ে তোলাই হচ্ছে ভিজ্যুয়ালাইজেশন বিভাগের কাজ।

লজিস্টিক বিভাগ

এ বিভাগের কাজ হলো, বড় কোন ইভেন্টের ক্ষেত্রে বিভিন্ন দরকারি জিনিসপত্র এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যাওয়া এবং প্রয়োজনীয় সব সরঞ্জাম সময়মতো সঠিক জায়গায় সরবরাহ করা।

জনশক্তি বিভাগ

ইভেন্ট আয়োজনে অতিরিক্ত জনবল দরকার হয়। এ দায়িত্বটুকু সঠিক ভাবে পালন করাই জনশক্তি বিভাগের কাজ।

মার্কেটিং বিভাগ

স্পন্সর জোগাড় থেকে শুরু করে জনসংযোগ সামলানো তথা ফার্মের সুনাম রক্ষা করা, পাশাপাশি সারা বছর যাতে কাজের শিডিউল লেগেই থাকে সেটা দেখা মার্কেটিং বিভাগের দায়িত্ব।

সম্ভাবনা

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের জন্য রয়েছে প্রচুর কাজের ক্ষেত্র। কর্মক্ষেত্রের ব্যস্ততা বেড়ে যাওয়ায় আমাদের দেশে দিন দিন ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের চাহিদা বাড়ছে। এ কাজে আয়ও বেশ ভালো। প্রায় প্রতিটি প্রতিষ্ঠান এখন সব ধরনের আয়োজনে সাহায্য নিচ্ছে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠানের।

এমনকি বড় বড় ফার্ম নিজস্ব ইভেন্ট আয়োজনে নিজস্ব বিভাগই চালু করেছে। বর্তমানে ঢাকার বাইরেও বেশ কিছু ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্ম গড়ে উঠেছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মোট বিলের ৫০ শতাংশ টাকা অগ্রিম পরিশোধ করতে হয় এবং অবশিষ্ট টাকা অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার পর পরিশোধ করতে হয়।

নতুনত্ব, সৃজনশীলতা, সচেতনভাবে গ্রাহকের চাহিদা ও বাজেটের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্মগুলো কাজ করে থাকে।

মেয়েদের জন্য সুযোগ

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস মেয়েদের জন্য খুব সম্ভাবনাময় একটি পেশা। কারণ মেয়েরা এখন আরও ট্রাডিশনাল পেশার বাইরে বিভিন্ন ধরনের পেশায় নিজেকে নিযুক্ত করছেন। এর মধ্যে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস একটি।

এ পেশায় আসতে হলে কি গুণ থাকা চাই

কমিউনিকেশন স্কিল যাদের ভালো তারা এ পেশায় দ্রুত ভালো করেন। তাই কারিয়ার গ্রাফটাকে দ্রুত বাড়াতে হলে যোগাযোগ এবং থাকতে হবে চমৎকার বাচনভঙ্গি ও ব্যক্তিত্ব। অনেকের কাছে, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এক ধরনের ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট। যিনি এই পেশায় সংকট ডিঙিয়ে যেতে পারবেন, তিনিই সফল হবেন।

শুরু করবেন যেভাবে

অফিস না নিয়ে অল্প পুঁজিতেও আপনি শুরু করতে পারেন ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ। তবে অফিস নিয়ে কাজ শুরু করতে চাইলে বিনিয়োগ করতে হবে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা। অফিস না নিলে আপনাকে লাখখানেক টাকা বিনিয়োগ করলেই চলবে।

সেক্ষেত্রে প্রথমেই বড় কাজ না ধরে ছোট ছোট কাজ দিয়ে শুরু করতে হবে। এতে চাপ থাকবে কম, বিনিয়োগও বেশি করতে হবে না।

যে বিষয়গুলো গুরুত্বপূর্ণ 

এই পেশায় আসতে হলে অবশ্যই আপনার মধ্যে ঝুঁকি ও স্যালাইন্স নেয়ার সাহস থাকতে হবে। থাকতে হবে অধিক যোগাযোগ দক্ষতা ও মানুষকে আকৃষ্ট করার ক্ষমতা। এ প্রসঙ্গে অ্যাকটিভিস্টি কমিউনিকেশনের ম্যানেজিং ডিরেক্টর খালেদুর রহমান জুয়েল বলেন, সব সমস্যাকে ডিঙিয়ে সম্ভাবনায় পরিণত করতে পারলে ইভেন্টে ভালো করা যায়।

সে কাজে সাফল্যের চাবিকাঠি হলোো কাজের মান। গ্রাহককে সন্তুষ্ট করতে পারলে এবং কাজের মানে কখনো সমস্যা না করলে বাড়তে থাকে কাজের পরিমাণ। তবে লিকুইড পানির প্রয়োজন আছে যথেষ্ট। তা না হলে অনেক কাজ হাতছাড়া হয়ে যেতে পারে। আর কাজ বাড়াতে হলে যোগাযোগের সঙ্গে চমৎকার বাচনভঙ্গি ও ব্যক্তিত্বের অধিকারী হওয়া জরুরী।

কাজের ক্ষেত্র ও আয়

এ কাজে আয়টাও বেশ ভালো। কোন কাজের ব্যয়ের খরচের শতকরা ৫০ ভাগ পাওয়া যায় অনুষ্ঠানের আগে, আর বাকি অর্ধেক পাওয়া যায় কাজ সম্পন্ন হওয়ার ৪৫ দিনের মধ্যে। আয় নির্ভর করে বিনিয়োগ, কাজের সংখ্যা ও পরিমাণের ওপর।

তবে খুব অল্প পুৃজিতে শুরু করেও আপনি প্রথম দিকেই প্রতি মাসে আয় করতে পারেন ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা। তো আর দেরি কে? বসে না থেকে আজই শুরু করুন ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস।

কিভাবে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রশিক্ষণ নিবেন? 

অনেক কাজ রয়েছে যেগুলোতে আপনার তেমন কোন দক্ষতার প্রয়োজন হয় না। কিন্তু ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস এ আপনার অবশ্যই দক্ষতা প্রয়োজন। যারা অনেক সময় ধরে এই বিজনেস করে আসছেন তাদের জন্য তো কোনো সমস্যা হয় না।

কিন্তু যারা একবার নতুন তারা এই বিজনেস থেকে ছিটকে পড়েন বা বিভিন্ন বাধার সম্মুখীন হয়ে থাকেন। এজন্য আপনাকে অবশ্যই আগে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে হবে। প্রয়োজনে আপনাকে কোথাও আগে সাধারণ হিসেবে কাজ করতে হবে।

এরপর কিছুদিন কোথাও ইভেন্ট ম্যানেজার হিসেবে কাজ করবেন। এভাবে আপনি দক্ষতা অর্জন করার পর নিজেই ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস শুরু করতে পারেন। বর্তমানে বিভিন্ন জায়গাতে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস এর কোর্স করিয়ে থাকে। সেখানে আপনি অনলাইনে বা অফলাইনে শিখতে পারেন।

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস করার নিয়ম কানুন

আপনি শুরুতেই কখনোই নিজে বিজনেস শুরু করতে যাবেন না। প্রথমত অন্যের বিজনেসে কাজ করবেন। অভিজ্ঞতা লাভ করার পর নিজে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস শুরু করতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনার কিছু নিয়মকানুন বা কিছু কাগজপত্রের প্রয়োজন হবে।

  • প্রতিষ্ঠানের ধরন 
  • টিন সার্টিফিকেট 
  • লাইসেন্স 
  • প্রতিষ্ঠান নিবন্ধন ইত্যাদি সংগ্রহ করে দিতে হবে 

আপনি যখন নিজেই প্রতিষ্ঠানটি শুরু করবেন তখন আপনার অবশ্যই প্রথমত দক্ষ জনবলের প্রয়োজন পড়বে। আপনার লোকজন যত দক্ষ হবে আপনার প্রতিষ্ঠানের সাফল্য তত বৃদ্ধি পাবে। 

এরপর প্রয়োজন আপনার প্রতিষ্ঠানের চারপাশে প্রচার। বর্তমান যুগে আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারের জন্য সেরা মাধ্যম ডিজিটাল মার্কেটিং। বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার প্রতিষ্ঠানটির প্রচার করতে পারবেন।

এর পাশাপাশি বিভিন্ন বিজ্ঞাপন বা লিফলেটের মাধ্যমেও প্রচারণা চালিয়ে যেতে পারেন। আপনি যখন বিভিন্ন জায়গাতে ভালো কাজ দেখাবেন তখন আপনার প্রতিষ্ঠানটি একটি ব্র্যান্ডে পরিণত হবে যা আপনার ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেসের সফলতার চাবিকাঠি বলা যায়।

আপনার প্রতিষ্ঠানের সফলতার জন্য আরেকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে সেটি হলো আপনার টিমের লোকজনের মধ্যে ভালো বন্ডিং থাকতে হবে। ভালো টিম ওয়ার্কের মাধ্যমেই আপনার প্রতিষ্ঠানের নাম উজ্জ্বল হবে। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস শুরু করার আগে অবশ্যই ভালো দক্ষ হন এরপর ভাবনা চিন্তা করে এটি নিয়ে ক্যারিয়ার গঠন করার সিদ্ধান্ত নিন।

পরিশেষে

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিজনেস কি এবং ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর কাজ কি এই বিষয়গুলো নিশ্চয় বুঝতে পেরেছেন। এই আর্টিকেলটি যদি আপনার ভালো লাগে এবং আপনার কোন মন্তব্য থাকলে নিচে কমেন্ট বক্সে লিখবেন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

জানবো আমরা ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url